মেনু নির্বাচন করুন

শাখার নামঃ
নাগরিক সেবা

নাগরিক সেবা

- পৌর এলাকার অপির্ত সম্পত্তির একসনা লীজ/লীজ নবায়নের আবেদন প্রাপ্তির ১ দিনের মধ্যে নথিতে উপস্থাপন করা হয় এবং তদন্ত প্রতিবেদন প্রাপ্তির ০৭ (সাত) দিনের মধ্যে নাবায়ন করা হয়।
- জেলা/উপজেলায় অর্পিত সম্পত্তি সংক্রান্ত দেওয়ানী মামলা ও মহামান্য হাইকোর্টের সরকারি স্বার্থ সংশ্লিষ্ট মামলা সংক্রান্ত পত্রালাপ করা হয়।
- অর্পিত সম্পত্তি সংক্রান্ত বিষয়ে ভূমি মন্ত্রণালয় ও বিভাগীয় কমিশনার মহোদয়ের অফিসের সাথে পত্রালাপ করা হয়।
- উপজেলা পর্যায়ের অর্পিত সম্পত্তি সংক্রান্ত লীজসহ যাবতীয় আপত্তি গ্রহণ ও নিষ্পত্তি করা হয়।

0

সেবা গ্রহণকারী

জাতীয় পর্যায়ে অনুষ্ঠিত নির্বাচন, বিভিন্ন পরীক্ষা, তদন্তকাজ, ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা, আইনশৃঙ্খলা, অবৈধ দখলদার উচ্ছেদ ইত্যাদি কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তাগণকে যানবাহন সরবরাহ করে জনসেবায় সহযোগিতা প্রদান।

প্রদেয় সেবা

ভিভিআইপি/ভিআইপিগণের এবং উচ্চ পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তাগণের সফর উপলক্ষেতাঁদের নিরাপত্তা, প্রটোকল, আবাসন, আপ্যায়ন, যানবাহন ব্যবস্থাপনা।

জাতীয় ও রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠান এবং বিভিন্ন সময়ে অনুষ্ঠিত সভা, সেমিনার উপলক্ষেঅতিথিবৃন্দের আপ্যায়ন।বিভিন্ন বিজ্ঞ আদালতের সমন ও অন্যান্য প্রসেস জারী।

অসুবিধা থাকলে অভিযোগের প্রক্রিয়া

যে কোন প্রকার প্রকার সমস্যা দেখা দিলে তাৎক্ষণিকভাবে নেজারত ডেপুটি কালেক্টরকে অবহিত করে সমস্যা সমাধানের প্রক্রিয়া গ্রহণ করা হয়।

সেবা গ্রহণকারীদের কাছে প্রত্যাশা

অফিস আঙ্গিনায় পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা।

- এ জেলার বিভিন্ন উপজেলা এবং "খ" ও "গ" শ্রেণীভুক্ত পৌরসভার হাট-বাজারের ইজারা সংক্রান্ত অভিযোগ।

- ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভার বিভিন্ন কার্যক্রমের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ।

- ইউনিয়ন পরিষদ এর নির্বাচিত চেয়ারম্যান/ওয়ার্ড সদস্যদের বিরুদ্ধ উত্থাপিত অভিযোগ।

- পৌরসভার নির্বাচিত চেয়ারম্যান, ওয়ার্ড কমিশনার/ সদস্যদের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ সংক্রান্ত।
- ইউনিয়ন পরিষদ সচিব, দফাদার ও মহল্লাদারদের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ সংক্রান্ত।
- ইউনিয়ন পরিষদ/পৌরসভা/উপজেলা পরিষদ কর্তৃক গৃহীত বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্যক্রমের বিরুদ্ধে উথাপিত অভিযোগ সংক্রান্ত।
- জেলা নির্বাচন কার্যালয় কর্তৃক নির্বাচন সংক্রান্ত বিভিন্ন কার্যক্রমের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ সংক্রান্ত।

- নিষ্পত্তির সময়কাল- অভিযোগ প্রাপ্তির পর অনধিক ০৩ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্তের জন্য প্রেরণ করা হয়। যুক্তিসংগত সময়ের মধ্যে তদন্ত কার্যক্রম সম্পন্নের পর ব্যবস্থা নেয়া হয় অথবা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট প্রেরন করা হয়।

- জেলা পরিষদ, এলজিইডি, পৌরসভা ও জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর, বার্ড ও উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন প্রকল্প ও হাট-বাজারের দরপত্র বিক্রি ও দাখিল সংক্রান্ত।

- নিষ্পত্তির সময়কাল-বিজ্ঞপ্তিতে প্রদত্ত শর্তানুযায়ী।


শাখার নামঃশিক্ষা ও উন্নয়ন
নাগরিক সেবা

সেবা গ্রহণকারী

সাধারনজনগণ

জেলাপ্রশাসকের কার্যালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ

প্রদেয় সেবা

জেলাই-সেবা কেন্দ্রের মাধ্যমে বিভিন্ন পর্চার জাবেদা নকলের কপি সরবরাহ করা হয়।

জেলাই-সেবা কেন্দ্রের মাধ্যমে নাগরিক ও দাপ্তরিক আবেদন পত্রের উপর দ্রুত সিদ্ধান্ত ওকার্যক্রম গৃহীত হয় এবং আবেদনকারী মোবাইলে এসএমএস এর মাধ্যমে কার্যক্রমেরঅগ্রগতি সম্পর্কে জানতে পারে।

জেলাতথ্য বাতায়ন সংক্রান্ত ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তা সর্বদা তথ্য হালনাগাদ করার কাজেসচেষ্ট থাকেন।

জেলাআইসিটি কেন্দ্রে ফাইবার অপটিক লাইনের সংযোগ রয়েছে এবং ভবিষ্যতে এ কেন্দ্র থেকেজেলার অন্যান্য সরকারি অফিসে ফাইবার অপটিক লাইনের সংযোগ নেয়া হবে।

জেলাআইসিটি কেন্দ্রে বিসিসি (বাংলাদেশে কম্পিউটার কাউন্সিল) থেকে নিয়োজিতপ্রোগ্রামারগণ জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে আইসিটি সংক্রান্ত সমস্যার সমাধান দিয়েথাকেন।

ঊর্ধ্বতনকার্যালয়/অত্র কার্যালয় হতে প্রাপ্ত পত্র মোতাবেক ত্বরিত কার্যক্রম গ্রহণ করাহয়।

অসুবিধা থাকলেঅভিযোগের প্রক্রিয়া

যেকোন সমস্যা ও অভিযোগথাকলে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) বা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আইসিটি শাখাকেঅবহিত করুন।

সেবা গ্রহণকারীদেরকাছে প্রত্যাশা

সঠিকতথ্য ও সঠিক কাগজপত্র দিয়ে অত্র শাখার কার্যক্রম ত্বরান্বিত করতে সহায়তা করবেন।

শাখারনিয়োজিত সকল কর্মকর্তা/কর্মচারীদের সহিত সৌজন্যমূলক ব্যবহার কাম্য।

নাগরিক সেবা

- সকল পাবলিক পরীক্ষার ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত।
- বেসরকারী স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা, কারিগরী শিক্ষা ম্যানেজিং কমিটি/গভর্নিং বডি সংক্রান্ত।
- বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শ্রেণী/শাখা খোলা/অভিযোগ সংক্রান্ত।
- প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ ও সংস্কার কাজ সংক্রান্ত।


শাখার নামঃসার্বিক
নাগরিক সেবা

নাগরিক সেবা

 লক্ষ্যও উদ্দেশ্য

 

জেলা প্রশাসনে কর্মরত অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) এর নিয়ন্ত্রণাধীন ৯টি শাখার মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য শাখা ০১টি।

এ শাখা থেকে মূলতঃ বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ভিত্তিককার্যক্রম ও নির্দেশনা পরিচালিত হয়।

 

 শাখারকাজের বিবরণী

 

১। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে জারীকৃত গোল্ডপ্রোকিউরমেন্ট স্টোরেজ এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন আদেশ/৮৭ ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্যনিয়ন্ত্রণ আদেশ ১৯৮১ এর আওতায় লৌহ ও ইস্পাত জাতীয় দ্রব্য, সিমেন্ট, সুতি কাপড়(পাইকারী/খুচরা), জুয়েলারী, স্বর্ণের কারিগরী, দুগ্ধজাত খাদ্য ও সিগারেট ব্যবসারলাইসেন্স প্রদান এবং মেয়াদ শেষে তা আবেদন মোতাবেক নবায়ন করা হয়।

২। ইট পোড়ানো (নিয়ন্ত্রণ) আইন মোতাবেক ইট ভাটারলাইসেন্স প্রদান সংক্রান্ত কাজ এ শাখা থেকে সম্পাদিত হয়।

৩। সার ডিলার নিয়োগ এবং সার নিয়ন্ত্রণসংক্রান্ত কাজ এ শাখায় সম্পাদিত হয়।

৪। জেলাধীন সিএসডি এবং এলএসডি তে সংরক্ষিতখাদ্য মজুদের বাৎসরিক বাস্তব প্রতিপাদন বিষয়ক কাজ এ শাখায় সম্পাদিত হয়।

 

 সেবাগ্রহণকারী

 

এ জেলার সংশ্লিষ্ট পেশায় নিয়োজিত ব্যক্তিবর্গ।

 

 প্রদেয়সেবা

 

উল্লেখিত বিধিবদ্ধ আইন, আদেশ এর আলোকে প্রাপ্তদরখাস্ত তদন্ত শেষে ফলাফল আবেদনকারী পেয়ে থাকেন।

 

 অসুবিধাসৃষ্টি ও নিষ্পত্তি

 

তদন্ত প্রক্রিয়া কোন কারণে তদন্তকারী কর্মকর্তাসম্পন্ন করতে না পারলে তা পুনরায় জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নির্দেশ গ্রহণ করে পুনঃতদন্তকারী কর্মকর্তা নিয়োগ করে তা সম্পন্ন করা হয়।

 

 সেবাগ্রহণকারীদের কাছে প্রত্যাশা

 

বিধিগত সহযোগিতা, দালিলিক সমর্থন এবং ক্ষেত্রবিশেষে ধৈর্য্যধারণ।

নাগরিক সেবা

ক্রম

সেবার নাম

সেবা প্রদানের পদ্ধতি

নির্দিষ্ট সেবা প্রদান ব্যাহত হলে প্রতিকারেরবিধান

০১

সিনেমাহল নির্মাণের জন্য এমওসি প্রদান

আবদেনকারীট্রেজারী মূলে র্নিধারিত হারে ফি পরিশোধ করে অন্যান্য তথ্যাদিসহ নির্ধারিত ফরমেআবেদন করবেন। প্রস্তাবিত তফসিলভুক্ত জমির মালিকানাও অন্যান্য বিষয়ে তদন্তের পর প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়।

শাখারভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা/ ঊর্ধ্বতনকর্তৃপক্ষের নির্দেশনা মোতাবেক সমস্যার সমাধান করা হয়।

০২

সিনেমাপ্রদর্শনী লাইসেন্স প্রদান

এন.ও.সি. প্রাপ্তির২ বৎসরের মধ্যে ট্রেজারী চালান মূলে লাইসেন্সফি পরিশোধ করে নির্ধারিত ফরমে আবেদন করবেন। সিনেমা হল নির্মাণ বিষয়ে স্বাস্থ্যবিভাগ, গণপুর্তবিভাগ, বিদ্যুৎবিভাগ ও ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স বিভাগ হতে প্রতিবেদন প্রাপ্তির পরলাইসেন্স প্রদান বিষয়ে কার্যক্রম গ্রহণকর হয়।

০৩

সিনেমাপ্রদর্শনী লাইসেন্স নবায়ন

বৎসরশেষ হওয়ার কমপক্ষে ২মাস পূর্বে নির্ধারিত হারে নবায়ন ফি পরিশোধ করে নির্ধরিতফরমে নবায়নের জন্য আবেদন করবেন। প্রয়োজনীয় তদন্তের পর নবায়ন বিষয়ে কার্যক্রমগ্রহণ করা হয়।

০৪

আবাসিকহোটেল, রেষ্টুরেন্টএর নিবন্ধিকরণ

আবাসিক হোটেল, রেস্টুরেন্ট ব্যবসা শুরু করার ২ মাসের মধ্যেনির্ধারিত হারে ফি পরিশোধ করে নিবন্ধনের জন্য আবেদন করবেন। প্রয়োজনীয় তদন্তের পরপ্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়।

০৫

আবাসিকহোটেল, রেষ্টুরেন্টএর লাইসেন্স প্রদান

আবাসিকহোটেল, রেস্টুরেন্টনিবন্ধনেরপর নির্ধারিত হারে ফি পরিশোধ করেঅত্র কার্যালয় হতে আবেদন ফর সংগ্রহ করেপ্রয়োজনীয় তথ্যাদিসহ আবেদন করবেন। আবেদন গ্রহিত হলে লাইসেন্স ফি পরিশোধ করবেন।লাইসেন্স ফি পরিশোধের রশিদ প্রাপ্তির ১৫ দিনের মধ্যে লাইসেন্স প্রদান করা হয়।

০৬

আবাসিক হোটেল, রেস্টুরেন্টএর নবায়ন

প্রত্যেক ডিসেম্বর মাসের ০১-৩১ তারিখের মধ্যেনির্ধারিত হারে নবায়ন ফি পরিশোধ করে লাইসেন্স নবায়নের জন্য আবেদন করবেন। আবেদনপ্রাপ্তির পর প্রয়োজনীয় তদন্ত করে নবায়ন কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়।

০৭

যাত্রা, সার্কাসপ্রদর্শনী লাইসেন্স প্রদান

আবেদনকারীলাইসেন্স ফি পরিশোধ করে নির্ধারিত ফরমে আবেদনকরবেন। প্রয়োজনীয় তদন্তের পর লাইসেন্স প্রদান কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়।

০৮

যাত্রা, সার্কাস এরলাইসেন্স নবায়ন

প্রত্যেকডিসেম্বর মাসে নির্ধারিত হারে নবাযন ফি পরিশোধ করে পরবর্তী বৎসরের জন্য লাইসেন্সনবায়নের আবেদনকরবেন। আবেদন প্রাপ্তির পর নবায়নকার্যক্রম গ্রহণ করা হয়।

০৯

নাটক, সাংস্কৃতিকঅনুষ্ঠান ইত্যাদির অনুমতি প্রদান

আবেদনপ্রাপ্তির পর ডিএসবি/ স্থানীয়কর্তৃপক্ষের মতামত প্রাপ্তির পর প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়।

নাগরিক সেবা

- সরকারী দাবী আদায় আইন ১৯১৩ এর ৫ ধারামতে সরকারী অফিস বা অন্যান্য সংস্থা সরকারী পাওনা আদায়ের জন্য সার্টিফিকেট অফিসারের কাছে অনুরোধ পত্র প্রেরণ করলে সার্টিফিকেট অফিসার নির্ধারিত ফরমে সার্টিফিকেট প্রস্তুত করে এই আইনের ৬ ধারা মতে নিজ দপ্তরে দাখিল করেন।
- সার্টিফিকেট দায়েরের পর সার্ঢিফিকেট দেনাদারকে প্রথমে সংশ্লিষ্ট আইনের ৭/১০(ক) ধারায় নোটিশ প্রদান করা হয়। নোটিশ প্রদানের পর আইনানুযায়ী পাওনা আদায়ের পরবর্তী কার্যক্রম গৃহীত হয়ে থাকে ।
- সার্ঢিফিকেট দেনাদার প্রথম নোটিশ পাবার পর ৯ ধারা অনুযায়ী ৩০ দিনের মধ্যে কোনরুপ আপত্তি থাকলে তা অবহিত করলে ১০ ধারা অনুযায়ী শুনানী অন্তে যৌক্তিক বিবেচিত হলে সার্টিফিকেট নাকচ, সংশোধন বা পরিবর্তন করা হয়ে থাকে ।
- খাতকের নিকট থেকে সরকারী পাওনা আদায়।
- তামাদি আইনের নির্ধারিত সময়ের মধ্যে মামলা করা হয়েছে কিনা তা তদারকি করণ।
- আবেদন যথাযথভাবে প্রদান করা হয়েছে কিনা তা মূল্যায়ন।
- সরকারী পাওনার হিসাব সঠিকভাবে করা হয়েছে কিনা তার যথার্থতা যাচাই করণ।
- নির্ধারিত হারে সরকারী ফি আদায় করা হয়েছে কিনা তা যথাযথভাবে যাচাই করণ ।

- মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় হতে মুক্তিযোদ্ধাদের অনুকূলে দেয় মুক্তিযোদ্ধা সনদপত্র প্রাপ্তি সাপেক্ষে চাহিদা মোতাবেক তাৎক্ষনিকভাবে সরবরাহ করা হয়।
- অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানীভাতা জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে দ্রুততার সাথে প্রদান করা হয়ে থাকে।
- মৃত মুক্তিযোদ্ধাদের লাশ দাফন, সৎকার ও সমাধি খাতে মন্ত্রণালয় হতে আর্থিক মঞ্জুরীর প্রাপ্তিসাপেক্ষে আবেদন মোতাবেক উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে তা পরিশোধের ব্যবস্থা করা হয়।
- সরকারী নির্দেশনা মোতাবেক মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাই কার্যক্রম দ্রুততার সাথে সম্পন্ন করা হয়।
- জেলা প্রশাসক বরাবরে মুক্তিযোদ্ধাদের সাহায্যের আবেদন কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিল, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, ঢাকা বরাবরে দ্রুততার সাথে প্রেরণ করা হয়ে থাকে।

0

- বাংলাদেশ ফরমস্ ও স্টেশনারি অফিস থেকে সরবরাহকৃত বিভিন্ন দ্রব্যাদি অত্রাফিসের বিভিন্ন শাখায় ও উপজেলা কার্যালয়ে বিতরণ করা হয়।
- নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে ব্যবহারের জন্য বিভিন্ন স্টেশনারি দ্রব্যাদি সরবরাহ করা হয়।

0

শাখার নামঃঅতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট
নাগরিক সেবা

নাগরিক সেবা

০১। লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

এখান থেকে জেলার বিভিন্ন অফিস, আদালত, ব্যাংক, পোষ্ট অফিস, এনজিও এবং স্ট্যাম্প ভেন্ডারগণ ও ব্যক্তি বিশেষকে প্রয়োজনে বিভিন্ন ধরণের স্ট্যাম্প চালানের মাধ্যমে সরবরাহ করে সরকারী রাজস্ব আদায় নিশ্চিত করা হয়।

০২। প্রদেয় সেবা

১। ষ্ট্যাম্প বিতরণঃ স্থানীয়ভাবে নির্ধারিত সপ্তাহে প্রতি মঙ্গলবার ও বৃহস্পতিবার চালানের মাধ্যমে চাহিদা প্রাপ্তির পর স্ট্যাম্প বিতরণ করা হয়।

২। পরিক্ষার প্রশ্নপত্র বিতরণঃ বিভিন্ন প্রকার পরিক্ষার প্রশ্নপত্র সংরক্ষণ ও বিতরণ করা হয়।

৩। অলিখিত পাসপোর্ট ষ্ট্যাম্প বিতরণঃ অলিখিত পাসপোর্ট সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের চাহিদা মোতাবেক সাপ্তাহিক ও সরকারী ছুটির দিন বাদে যে কোন দিন পাসপোর্ট বহি বিতরণ করা হয়ে থাকে।

৪। স্ট্যাম্প ভেন্ডার লাইসেন্স নবায়নঃচলতি বৎসরের ডিসেম্বর মাস হতে পরবর্তী বৎসরের ফেব্রুয়ারী মাস পর্যন্ত নবায়ন ফি জমা নেয়া হয় এবং লাইসেন্স নবায়ন করা হয়ে থাকে।

৫। নতুন ভেন্ডারশীপ লাইসেন্স প্রদানঃ শাখায় আবেদন পাওয়ার পর এক সপ্তাহের মধ্যে আবেদনগুলো চারিত্রিক প্রতিবেদনের মধ্যে জেলা বিশেষ শাখায় প্রেরণ করা হয়। প্রতিবেদন পাওয়ার পর সুনির্দিষ্ট নিয়মে কর্তৃপক্ষ বরাবরে উপস্থাপন করা হয়ে থাকে।

০৩। সেবা গ্রহণকারী

বিভিন্ন অফিস, আদালত, ব্যাংক, পোষ্ট অফিস, এনজিও, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং স্ট্যাম্প ডেন্ডারগণ ও ব্যক্তি বিশেষ।

০৪। কিভাবে সেবা দেয়া হয়

অফিস সময় সকাল ৯.০০ টা হতে বেলা ২.০০টা পর্যন্ত বিভিন্ন অফিস, আদালত, ব্যাংক, পোষ্ট অফিস, এনজিও, স্ট্যাম্প ভেন্ডারগণ ও ব্যক্তি বিশেষ ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে টাকা জমা দিয়ে চালানের কপি এ শাখায় দাখিল করবেন। তৎপ্রেক্ষিতে স্ট্যাম্প বিতরণ করে সেবা প্রদান করা হয়ে থাকে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের চাহিদা মোতাবেক সাপ্তাহিক ও সরকারী ছুটির দিন বাদে যে কোন দিন পাসপোর্ট বিতরণ করে সেবা প্রদান করা হয়ে থাকে। চলতি বৎসরের ডিসেম্বর মাস হতে পরবর্তী বৎসরের ফেব্রুয়ারী মাস পর্যন্ত নবায়ন ফি জমা নেয়া হয় এবং লাইসেন্স নবায়নপূর্বক সেবা প্রদান করা হয়ে থাকে। শাখায় আবেদন পাওয়ার পর এক সপ্তাহের মধ্যে আবেদনগুলো চারিত্রিক প্রতিবেদনের জন্য জেলা বিশেষ শাখায় প্রেরণ করা হয়। প্রতিবেদন পাওয়ার পর সুনির্দিষ্ট নিয়মে কর্তৃপক্ষ বরাবরে উপস্থাপন করা হয়ে থাকে। পরীক্ষার প্রশ্নপত্র বিতরণঃ সকল পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ট্রেজারিতে জমা থাকে। পরীক্ষার নির্ধারিত তারিখ ও সময়ে তা বিতরণ করা হয়ে থাকে।

০৫। অসুবিধা থাকলে অভিযোগের প্রক্রিয়া

কোন সমস্যা/অভিযোগ থাকলে সরাসরি ট্রেজারি অফিসারকে জানান।

০৬। সেবা গ্রহণকারীদের কাছে প্রত্যাশা

সেবা গ্রহণকারীগণ নির্ধারিত সময়ে যথানিয়মে স্ট্যাম্প ও প্রশ্নপত্র গ্রহণ করবেন।

লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

জুডিশিয়াল মুন্সীখানা কালেক্টরেটের একটি অন্যতম প্রধান শাখা। এটি মূলত বিচার শাখা হিসেবে কাজ করে। ম্যাজিস্ট্রেসী এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থার মধ্যকার সমন্বয় তত্ত্বাবধান মূলক কাজ এ শাখার মাধ্যমে সম্পাদিত হয়। এসিডের লাইসেন্স প্রদান ও বিচার সংক্রান্ত সর্বাত্নক নাগরিক সেবা যথাসময়ে যথাযথভাবে সুনিশ্চিতকরণই শাখার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য।

সেবা গ্রহণকারী

বিচার সংক্রান্ত সেবা পেতে যে কোন আবেদনকারী নাগরিক,

আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স সংক্রান্ত সেবা পেতে যে কোন আবেদনকারী,

সরকারী কর্মকর্তা ও নাগরিক।

প্রদেয় সেবা

  1. ম্যাজিস্ট্রেসী বিষয়ক কার্যক্রমের সমন্বয় সাধন সংক্রান্তসেবা।
  2. আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সাথে সমন্বয় ও পরীবিক্ষণ সংক্রান্ত কার্যক্রম সম্পন্ন করা।
  3. বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেটগণের কর্মসম্পাদন মূল্যায়ন ওক্ষমতা প্রদান সংক্রান্ত কার্যক্রম।
  4. বিজ্ঞ দায়রা জজ থেকে প্রাপ্ত আপিল/রিভিশন ও মামলার নথী বদলী সংক্রান্ত কার্যক্রম সেবা।
  5. আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ/বিডিআর/সেনাবাহিনী নিয়োজিতকরণ এবং এতদসংক্রান্ত ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগকরণ কার্যক্রম।
  6. ভ্রাম্যমান আদালত/ উচ্ছেদকরণ/বিভিন্ন পরীক্ষা/বিভিন্ন নির্বাচন সংক্রান্ত ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগকরণ কার্যক্রম।
  7. কবর হতে লাশ উত্তোলনের ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগকরণ সংক্রান্ত কার্যক্রম।
  8. আইন-শৃঙখলা নিয়ন্ত্রণ ও পরীক্ষা কেন্দ্রে ফৌকাবি ১৪৪ ধারা জারী সংক্রামত্ম কার্যক্রম।
  9. প্রাপ্ত চিঠিপত্র গ্রহণ ও রেজিস্টার ভুক্তকরণ কার্যক্রম।
  10. শাখার চিঠিপত্র ইস্যু কার্যক্রমের সেবা।
  11. সরকারী উকিলদের ভাতা, সম্মানী, রিটেইনার মঞ্জুরী ও বিল পরিশোধ সংক্রান্ত কার্যক্রম।
  12. জেলা ও আন্তঃ জেলায় প্রসেস জারী সংক্রান্ত কার্যক্রম।
  13. ভিকটিমের সাথে সাক্ষাত সংক্রান্ত কার্যক্রমের জন্য বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট বরাবর আবেদন করতে হয়। প্রাপ্ত আবেদনটি নির্দিষ্টি নথীতে দিয়ে বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মহোদয়ের অনুমোদানেরজন্য পাঠানো হয়। অনুমোদন হয়ে আসার পর অনুমতিপত্র ইস্যু করা হয়।
  14. বিশেষক্ষমতা আইনে আটক ব্যক্তিদের সহিত সাক্ষাত কার্যক্রম বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মহোদয় বরাবর আবেদন করতে হয়। প্রাপ্ত আবেদনটি বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মহোদয়ের অনুমোদন ক্রমে পুলিশ সুপার, জেলা বিশেষ শাখা, ময়মনসিংহ বরাবর মতামতের জন্য প্রেরণ করা হয়। উল্লেখ্য যে ডিভিশন প্রাপ্ত আসামীরা ১৫ (পনের) দিন অন্তর অন্তর সাক্ষাতের অনুমতি পান এবং অন্যান্য আসামীরা পঞ্জিকা মাসে ১ (এক) বার সাক্ষাতের অনুমতি পেয়ে থাকে।
  15. নিম্ন আদালত হতে প্রাপ্ত আদেশনামার কপি সংক্রান্ত কার্যক্রম।
  16. অভিযোগ সংক্রান্ত কার্যক্রমের সেবা কার্যক্রমঃ সরকারের উপ-সচিব থেকে তদুর্ধ্ব পর্যায়ে কর্মকর্তা, সশস্ত্র বাহিনীর মেজর থেকে তদুর্ধ্ব পর্যায়ের কর্মকর্তাগণ এবং ব্যাক্তিগত পর্যায়ে যারা বৎসরে ২ (দুই) লক্ষটাকা আয়কর প্রদান করেন এবং ওয়ারিশান মূলে। বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মহোদয় বরাবর আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে হয়। প্রাপ্ত আবেদনটি বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মহোদয়ের অনুমোদন ক্রমে পুলিশ সুপার, জেলা বিশেষ শাখা, ময়মনসিংহ বরাবর তদন্তের জন্য প্রেরণ করা হয়। পুলিশ সুপার, জেলা বিশেষ শাখা, ময়মনসিংহ এর মতামত পাওয়ার পর তা লং ব্যারেল এরক্ষেত্রে সরকারী ফি জমা দেয়ার পর লাইসেন্স প্রদান করা হয়। শর্ট ব্যারেলের ক্ষেত্রে বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবেদনকারীর ব্যাক্তিগত সাক্ষাতকার গ্রহণ পূর্বক প্রয়োজনীয়তা যাচাই যথার্থ মনে করিলে পূর্বানুমতির জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করবেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতি পাওয়ার পর লাইসেন্স ইস্যু করা হয়।
  17. এসিড লাইসেন্স সংক্রান্ত সেবা। আবেদন প্রাপ্তির পর যথাযথভাবে তদন্ত করা হয় এবং পুলিশ সুপার, জেলা বিশেষ শাখার অভিমত গ্রহণ করা হয়। অতঃপর সার্বিক দিক বিবেচনান্তে এসিড নিয়ন্ত্রণ আইন ২০০২ এবং বিধি ২০০৪ আলোকে কার্যক্রম সম্পাদিত হয়।
  18. মহামান্য সুপ্রিম কোর্ট/হাইকোর্ট কর্তৃক মিস, রিভিশন, আপিল ও রীট পিটিশন সংক্রান্ত কার্যক্রমের সেবা। মহামান্য সুপ্রিম কোর্ট এর হাইকোর্ট বিভাগ হতে কোন আদেশ পাওয়ার পর টেলিফোনে সহকারী রেজিস্টারের নিকট হতে তার সত্যতা যাচাই পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।
  19. মহামান্য হাইকোর্ট হইতে তলবকৃত মামলার নথি প্রেরণ সংক্রান্ত কার্যক্রম ।
  20. মহামান্য হাইকোর্ট/বিজ্ঞ জেলা জজ কর্তৃক প্রদত্ত আদেশ (মামলার রায়) বাস্তবায়ন সংক্রান্ত কার্যক্রম।
  21. বিবিধ সেবা

অভিযোগের প্রক্রিয়া

কোন সমস্যা/অভিযোগ থাকলে সরাসরি সহকারী কমিশনার (জেএম) কে জানান।

সিটিজেনদের কাছে প্রত্যাশা

আইন ও বিধি মোতাবেক সংশ্লিষ্ট সেবা পাওয়ার জন্য আবেদন করবেন এবংসেবা গ্রহণ করবেন।

আগ্নেয়াস্ত্র লাইসেন্স প্রাপ্তির পদ্ধতিঃ

- নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হবে।

- ৩(তিন) কপি সত্যায়িত ছবি এবং এস,এস,সি পাসের সনদের সত্যায়িত ফটোকপি/জন্ম নিবন্ধন সনদের সত্যায়িত ফটোকপি ।

- ৫(পাঁচ) টাকার কোর্ট ফি।

- ১৫০/- টাকার নন-জুডিশিয়াল ষ্ট্যাম্পে আগ্নেয়াস্ত্র আছে/নাই মর্মে ছবি সম্বলিত নোটারাইজডকৃত হলফনামা।

- ব্যবসায়িক প্রার্থীর ক্ষেত্রে ট্রেড লাইসেন্স এবং অংশীদারিত্ব ব্যবসার ক্ষেত্রে কোম্পানীর মেমোরেন্ডাম এর সত্যায়িত ফটোকপি।

- ২(দুই) লক্ষ টাকা আয়কর প্রদান সংক্রান্ত প্রত্যয়নপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি। প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানের দলিল/ভাড়ার চুক্তির দলিলের ফটোকপি।
- সন্তোষজনক পুলিশ রিপোর্টের প্রেক্ষিতে লাইসেন্স এর ধার্য্য নির্ধারিত ফি জমাদান পূর্বক চালানের কপি জমা দিয়ে লং ব্যারেল আগ্নেয়াস্ত্র লাইসেন্স ইস্যু করা হয়।
- পিস্তল/রিভলবার লাইসেন্স প্রদানের ক্ষেত্রে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনাপত্তির প্রেক্ষিতে লাইসেন্স এর ধার্য্য ফি জমাপূর্বক চালানের কপি জমা নিয়ে লাইসেন্স ইস্যু করা হয়।

আগ্নেয়াস্ত্র লাইসেন্স নবায়ন ফিঃ

 

ক্রম

আগ্নেয়াস্ত্রের বর্ণনা

ইস্যু ফি

নবায়ন ফি

বিলম্বে নবায়ন ফি

১।

পিস্তল/রিভলবার/রাইফেল

৪,০০০/-

২,০০০/-

৪,০০০/-

২।

বন্দুক/শটগান

২,০০০/-

৮০০/

২,০০০/-

৩।

গাদা বন্দুক/তলোয়ার/ শিকারের ছুড়ি

৮০০/-

৪০০/-

৪০০/-

৪।

আগ্নেয়াস্ত্র ডিলিং/ আগ্নেয়াস্ত্র মেরামতি ফি

১০০০/-

৫০০/

১০০০/-

৫।

রাইফেল ডিলিং/ রাইফেল মেরামতি ফি

৫০০/-

২৫০/-

৫০০/-

 

নবায়ন পদ্ধতিঃ

(ক) লাইসেন্স হালনাগাদ নবায়ন থাকলে লাইসেন্সধারী নবায়ন ফি জমা দিয়ে মূল ট্রেজারী চালান অত্রাফিসে উপস্থাপন করলে সাথে সাথে লাইসেন্স নবায়ন করে দেয়া হয়।
(খ) সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যগণ মূল লাইসেন্স ও আবেদন পত্র জমা দিলে সঙ্গে সঙ্গে ফি ব্যতীত লাইসেন্স নবায়ন করে দেয়া হয়।
(গ) লাইসেন্স হালনাগাদ নবায়ন না থাকলে বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এর অনুমোদন সাপেক্ষে লাইসেন্স

- ফৌজদারী মামলার বা মামলা সংশ্লিষ্ট কাগজ পত্রের সইমুহুরী নকল সরবরাহ করা হয়।


শাখার নামঃরাজস্ব
নাগরিক সেবা

 

এটি একটি জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নিয়ন্ত্রণাধীন শাখা। এইশাখার মাধ্যমে সরকারী, স্বায়ত্ত্বশাসিত সংস্থা, বেসরকারী মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানএর জন্য প্রয়োজনীয় ভূমি অধিগ্রহণ সংক্রান্ত কার্যক্রম পরিচালিত হয়।

 

# সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কর্মকাণ্ড পরিচালনারজন্য সরকারী ও ব্যক্তি মালিকানাধীন ভূমি অধিগ্রহণ করণের যাবতীয় কার্যক্রমপরিচালনা করা হয়। ভূমির সঠিকতা যাচাইয়ের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রত্যাশী সংস্থার নিকটহইতে অর্থ বরাদ্দ পাপ্তি সাপেক্ষে অধিগ্রহণকৃত ভূমির মালিকদের স্বত্ত্বসংক্রান্ত যাবতীয় কার্যাদি পরীক্ষা-নিরীক্ষারপর ভূমিরক্ষতিপূরণের অর্থ সংশ্লিষ্টভূমির মালিকদের প্রদান করা হয়। অধিগ্রহণকৃত ভূমি প্রত্যাশী সংস্থার বরাবরে দখলহস্তান্তর করা হয়ে থাকে।

# ভূমিঅধিগ্রহণ কৃত ঘর/বাড়ি সরকারী কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের নামে বরাদ্দ প্রদান করাহয়। বরাদ্দ গ্রহনণকারী কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের আবেদনের প্রেক্ষিতে সংশ্লিষ্ট ঘর/বাড়ি মেরামত সংক্রান্তকার্যক্রম পরিচালিত হয়।

#ভূমি অধিগ্রহণ সংক্রান্ত জটিলতা ও উদ্ভূত মোকদ্দমাসংক্রান্ত বিভিন্ন আদালতে তলব মোতাবেক সাক্ষ্য প্রদান সংক্রান্ত কার্যক্রম।

সেবা গ্রহণকারী

# প্রত্যাশী সংস্থাসমূহ।

#ভূমি অধিগ্রহণকৃত সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

প্রদেয় সেবা

# সরকারী নিয়মানুযায়ী সকাল ৯.০০ ঘটিকা হতে বিকেল ৫.০০ঘটিকা সময় পর্যন্ত (অফিস চলাকালীন সময়ে) ভূমি অধিগ্রহণ সংশ্লিষ্ট সকলব্যক্তিবর্গ কর্তৃক প্রদত্ত তাহাদের জমি সংক্রান্ত যাবতীয় কাগজ পত্র পরীক্ষা-নিরীক্ষাও এতদসংক্রান্ত বিষয়ে বিভিন্ন তথ্য দিয়ে সহায়তা করা হয়ে থাকে। ভূমি অধিগ্রহণসংক্রান্ত যে কোন জটিলতা নিরসনে বিধি মোতাবেক কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়। বিভিন্ন পদক্ষেপগ্রহণ করা হয়ে থাকে।

অসুবিধা থাকলে অভিযোগের প্রক্রিয়া

#যে কোন সমস্যা ও অভিযোগ থাকলে সরাসরি ভূমি অধিগ্রহণকর্মকর্তার গোচরীভূত করার পরামর্শ দেয়া হলো।

সেবা গ্রহণকারীদের কাছে প্রত্যাশা

# সঠিক তথ্য ও সঠিক কাগজ-পত্র দিয়ে অত্র শাখারকার্যক্রম ত্বরান্বিত করতে সহায়তা করবেন।

# শাখায় নিয়োজিত সকল কর্মকর্তা/কর্মচারীদের সহিত সৌজন্যমূলকব্যবহার কাম্য।

রাজস্ব মহাফেজখানা শাখা হতে বিভিন্ন নথি ও রেজিষ্টার এর নকল ও তথ্য সরবরাহ করা হয়। যে কোন নাগরিক এ জন্য আবেদন করতে পারেন।
(ক) আবেদনকারীকে নকল তথ্য এর জন্য নির্দিষ্ট আবেদন ফর্মের সাথে ১০ (দশ) টাকার কোর্ট ফি সংযুক্ত করে আবেদন করতে হয়। জেলা সদরের বাইরে থেকে তলব মোতাবেক যে সকল নথি বা রেজিষ্টারের বাবদ ২০ (বিশ) টাকার অতিরিক্ত কোট ফি ষ্ট্যাম্পসহ মোট ২৮ (আটাশ) টাকার কোর্ট ফি ষ্ট্যাম্প সংযুক্ত করতে হয়।


(খ) যে সকল নথি ও রেজিষ্টার অত্র শাখায় সংরক্ষিত আছে সে সবের নকল ও তথ্য আবেদনপত্র প্রাপ্তির দিবস বাদ দিয়ে তৃতীয় কার্য দিবস বিকাল ৪.০০ ঘটিকার মধ্যে সরবরাহ করা হয় (নথি ও রেজিষ্টার প্রাপ্তি সাপেক্ষে)।


(গ) যে সকল নথি বা রেজিষ্টার এ কার্যালয়ের বিভিন্ন শাখায় ও উপজেলা ভূমি অফিসে সংরক্ষিত থাকে সেগুলির নকল ও তথ্য সরবরাহ করা হয়। উক্ত অসিসমূহ থেকে রেকর্ডপত্র প্রাপ্তির পরবর্তী তিন দিনের মধ্যে (তবে এষ্টিমেট জমা দেয়া সাপেক্ষে)। উল্লেখ্য যে, সে সকল নথি বা রেজিষ্টার অত্র অফিসে সংরক্ষিত নেই সে সবের আবেদন পত্র পরের দিনই সংশ্লিষ্ট অফিসে প্রেরণ করা হয়ে থাকে। আদালতের তলব মোতাবেক নথি উপস্থাপন করা হয়।
সেবা গ্রহণকারীঃ জনসাধারণ, সরকারী, বেসরকারী, স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানসমূহ।

0

সর্বমোট তথ্য: ২৭