মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

বিশেষ অর্জন

বিশেষ অর্জন

 

০১। গ্রন্থ প্রকাশ

 

 

ময়মনসিংহ জেলার দ্বিশত বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে ১৯৮৭ সালে জেলা প্রশাসন, ময়মনসিংহের উদ্যোগে জেলার সর্বস্তরের বিশিষ্টজনদের নিয়ে আয়োজন করা হয় বর্ষব্যাপী কর্মসূচী। যে কর্মসূচী জেলা প্রশাসনকে সর্বস্তরের মানুষের কাছে জনপ্রিয় করে তোলে।

 

(ক) ‘ময়মনসিংহের জীবন ও জীবিকা’ শিরোনামে গ্রন্থ প্রকাশ ময়মনসিংহ জনপদের জীবন ও জীবিকা, ভূ-প্রকৃতি ও ভূমি ব্যবস্থা, জনসমাজ, পানি সম্পদ, বনাঞ্চল ও বনজ সম্পদ, পশুপাখি ও মৎস্য সম্পদ, গৃহ ও গৃহসজ্জা, পোষাক পরিচ্ছদ ও খাদ্যাভ্যাস, কৃষি ব্যবস্থা, শিক্ষা ব্যবস্থা, স্বাস্থ্য ব্যবস্থা, যাতাযাত ও যোগাযোগ ব্যবস্থা, প্রশাসন ব্যবস্থা, বৃহৎ ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প, পুরাকৃর্তি ও পুরাকাহিনী, রাজনৈতিক আন্দোলন ও ঐতিহ্য, মুক্তিযুদ্ধ’৭১ ঐতিহ্য, নারীজাগরণ ও প্রগতিসহ মোট বিশটি বিষয়ে বিষয়-বিশেষজ্ঞদের রচনায় ঋদ্ধ হয়ে প্রকাশিত হয় ‘ময়মনসিংহের জীবন ও জীবিকা’ গ্রন্থটি। এই গ্রন্থটি প্রকাশের মাধ্যমে এ জেলার জীবন, প্রকৃতি ও মানুষ সম্পর্কে আগ্রহীদের তৃষ্ণা মিটাতে বিশেষ অবদান রাখা হয়েছে। ইতিহাসবিদ-গবেষকদের গবেষণা কাজের জন্য এ গ্রন্থটি আকর গ্রন্থ হিসেবে ভূমিকা রেখেছে বলে মনে করা হয়।

 
(খ) ‘ময়মনসিংহের ইতিহাস ও বিবরণ’ গ্রন্থ প্রকাশ। কেদারনাথ মজুমদার রচিত এ গ্রন্থটি জেলার দ্বিশত বার্ষিকী উপলক্ষে পুণর্মুদ্রণ করা হয়। এ গ্রন্থ প্রকাশের মাধ্যমে নতুন প্রজন্মের গবেষকদের গবেষণার কাজে বাড়তি মাত্র যোগ হয়েছে এবং জেলা সম্পর্কিত অনেক তথ্য সহজলভ্য হয়েছে।

 

(গ) ‘ময়মনসিংহের চরিতাভিধান’ শিরোনামে গ্রন্থ প্রকাশ। জেলার দ্বিশত বার্ষিকী উপলক্ষে দরজি আবদুল ওয়াহাব প্রণীত এ গ্রন্থটি ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসনের অর্থানুকূল্যে প্রকাশিত হয়। গ্রন্থটিতে বৃহত্তর ময়মনসিংহের শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি, রাজনীতি, ক্রীড়া, সমাজসেবাসহ বিভিন্ন শাখায় প্রায় ১২০০ বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি মুদ্রিত হয়। গ্রন্থটির সীমাবদ্ধতা নিয়ে কিছু আলোচনা হলেও বৃহত্তর ময়মনসিংহের ইতিহাস ঐতিহ্য চর্চার ক্ষেত্রে গ্রন্থটি উল্লেখযোগ্য অবদান রাখায় সর্বমহলে প্রশংসিত হয়। এ গ্রন্থ প্রকাশনার মাধ্যমে এ অঞ্চলের গুণী মানুষদের সাথে পরবর্তী প্রজন্মের মানুষদের পরিচয় ঘটেছে।

 

ময়মনসিংহের তৎকালীন জেলা প্রশাসক এম এ মান্নান এর উদ্যোগ ও আন্তরিকতায় এ কর্মসূচী সাফল্য লাভ করে। ১৯৮৬ সালে এই কর্মসূচীর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয় এবং ১৯৮৮ সালে এটি পূর্ণতা লাভ করে।

 

 

 


০২। শহর পরিচ্ছন্নকরণ ও জলাবদ্ধতা নিরসনে উদ্যোগ

 
শহরের ড্রেনেজ সিস্টেম ও রাস্তাঘাট পরিচ্ছন্নকরণ ও জলাবদ্ধতার কারণ অনুসন্ধান করে তা নিরসনে জেলা প্রশাসন পৌরসভা ও শহরের বিশিষ্টজনদের নিয়ে এক বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণের ফলে ময়মনসিংহ শহরের অধিকাংশ সড়ক ও মহল্লার নিত্য জলাবদ্ধতা অনেকাংশে প্রশমিত হয়। পূর্বে সামান্য বৃষ্টিতেই শহরবাসী যে ভোগান্তির শিকার হতো জেলা প্রশাসনের এ উদ্যোগের ফলে শহরবাসী অনেকটাই স্বস্তি লাভ করেছে।

 

ময়মনসিংহের তৎকালীন জেলা প্রশাসক মোঃ শামসুল আলম এর উদ্যোগ ও আন্তরিকতায় এ কর্মসূচী সাফল্যলাভ করে। ২০০৬ সালে এই কর্মসূচীর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয় এবং একই বছরে এটি পূর্ণতা লাভ করে।

 

 

                      


০৩। ময়মনপিডিয়া

 
তথ্য প্রযুক্তির সফল ব্যবহারের মাধ্যমে ময়মনসিংহ জেলার সার্বিক চিত্র তুলে ধরে জেলার ইতিহাস, ঐতিহ্য, দর্শনীয় স্থান, আকর্ষণীয় ছবিসহ ময়মনপিডিয়া নামক সিডি প্রকাশ করা হয়।

 

ময়মনসিংহ জেলার ১২টি উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা, পথঘাট, যোগাযোগ ব্যবস্থা, ঐতিহাসিক নিদর্শন, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, জনপ্রতিনিধি পরিচিতি ইত্যাদি সচিত্র প্রতিবেদনসহ ময়মনপিডিয়া সিডির মাধ্যমে তুলে ধরা হয়। এই সিডি প্রকাশনার মাধ্যমে ময়মনসিংহের ইতিহাস ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি যেমন সহজে আগ্রহী মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়া যাবে পাশাপাশি এটি সহজ বহনযোগ্যও হবে। বর্তমান তথ্য প্রযুক্তির সাথে সঙ্গতি রেখে এ উদ্যোগটি সর্বস্তরের মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠেছে। এই সিডি প্রকাশনার মাধ্যমে কেবল ময়মনসিংহবাসী নয় উপকৃত হয়েছে সমগ্রজাতি এবং বিশ্বও। ২০০৮ সালে তৎকালীন জেলা প্রশাসক মোঃ জিয়াউর রহমান খান এর সরাসরি তত্ত্বাবধানে এই কাজটি বাস্তবায়িত হয়।

 

 

                                          

 

 

ময়মনপিডিয়া সিডি

 

 

 



 

 

০৪। তথ্য ও অভিযোগ কেন্দ্র

 

জেলা প্রশাসনে জেলার সর্বস্তরের নাগরিকদের সহযোগিতা করার জন্য ময়মনসিংহ কালেক্টরেট এ দ্বিতীয় তলায় উত্তর প্রান্তে স্থাপন করা হয় তথ্য ও অভিযোগ কেন্দ্র। এই কেন্দ্রে যে কোন ব্যক্তি জেলা প্রশাসন অথবা ময়মনসিংহ জেলা সম্পর্কে যে কোন তথ্য সংগ্রহ করার সুযোগ পেয়ে থাকেন। একই সঙ্গে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের যে কোন কর্মকর্তা-কর্মচারী অথবা নাগরিকদের যে কোন সমস্যা সম্পর্কে যে কোন অভিযোগও গ্রহণ করা হয়। একজন সহকারী কমিশনারের তত্ত্বাবধানে এই তথ্য ও অভিযোগ কেন্দ্রটি পরিচালিত হয়। কেন্দ্রটি চালু হবার ফলে ময়মনসিংহের সর্বস্তরের মানুষ এর সুবিধা ভোগ করছেন। তৎকালীন জেলা প্রশাসক মোঃ শামসুল আলম এর দিক নির্দেশনা ও পরমর্শে ২০০৭ সালে এ কেন্দ্রটি চালু করা হয়।